দিন-দুপুরে ব্যর্থ কিলিং মিশনে গুলিবিদ্ধ ২॥ এলাকায় আতঙ্ক

0
118

চরমপন্থীদের আধিপত্য বিস্তারকে কেন্দ্র করে প্রকাশ্য দিবালকে আলতাফ হোসেন (৩৮) নামে এক ব্যাক্তিকে হত্যা করতে এসে ব্যর্থ হয়েছে অজ্ঞাত দুর্বৃত্তরা। এসময় দুর্বৃত্তদের গুলিতে দুই পথচারী গুলিবিদ্ধ হয়েছে। ঘটনাটি ঘটেছে বৃহস্পতিবার দুপুর ১২টার দিকে গোয়ালন্দ ও রাজবাড়ী সদর উপজেলার সীমান্তবর্তী অন্তার মোড় বাজারে। এ ঘটনার পর এলাকায় চরম আতঙ্ক বিরাজ করছে।

গুলিবিদ্ধরা হলেন গোয়ালন্দ উপজেলার ছোটভাকলা ইউনিয়নের চর বরাট গ্রামের মৃত ইয়াদ আলী বিশ^াসের ছেলে করম আলী বিশ^াস (৫৫) ও রাজবাড়ী সদর উপজেলার বরাট ইউনিয়নের সাভার গ্রামের ফজের আলী বেপারীর ছেলে ভ্যান চালক ইসলাম বেপারী।

প্রত্যক্ষদর্শীরা রাজবাড়ীবিডিকে জানান, বৃহস্পতিবার বেলা ১২টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলার ছোট ভাকলা ইউনিয়নের চর বরাট গ্রামের গেদা শেখের ছেলে আলতাফ হোসেন অন্তার মোড় বাজারে একটি চায়ের দোকানে বসেছিল। এসময় অজ্ঞাত দুই অস্ত্রধারী প্রথমে তাকে বাইরে আসতে বলে। আলতাফ বিপদ আঁচ করতে পেরে সে সেখান থেকে দৌঁড়ে পালানো চেষ্টা করে। কিছুদুর যেতে দুর্বৃত্তরা তাকে ধরে অস্ত্র ঠেকিয়ে গুলি করে। কিন্তু আলতাফের ধস্তাধস্তিতে গুলি লক্ষ্যভ্রষ্ট হয়ে পাশের একটি বন্ধ দোকানের সার্টারের গিয়ে লাগে। সেখান থেকে তাদের হাত থেকে আলতাফ ছুটে গিয়ে ফের দৌড়ে পালায়। এসময় সেখানে জড়ো হয়ে যায় শত শত এলাকাবাসী। দুর্বৃত্তরা তাদের কাছে থাকা আগ্নেয়াস্ত্র থেকে অন্তত ২০ রাউন্ড গুলি ছুঁড়তে ছুঁড়তে দ্রুত সেখান থেকে পদ্মা নদীর দিকে চলে যায়। তাদের ছোঁড়া গুলিতে গুলিবিদ্ধ হন ওই দুই পথচারী। পরে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল থেকে কিছু গুলির খোসা ও কয়েকটি জুতা উদ্ধার করেছে।

অন্তার মোড় অটো-মাহেন্দ স্ট্যান্ডের সিরিয়াল ম্যান মিজানুর রহমান রাজবাড়ীবিডিকে জানান, ভ্যান চালক ইসলাম চোখের উপরে গুলিবিদ্ধ হয়েছে এবং করম আলী বুকে গুলিবিদ্ধ হয়েছেন। তাদেরকে উদ্ধার করে চিকিৎসার জন্য রাজবাড়ী সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এদিকে ঘটনাস্থল পরিদর্শ করেছেন রাজবাড়ীর সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আছাদুজ্জামান, গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি মীর্জা একে আজাদ, রাজবাড়ী সদর থানার ওসি (তদন্ত) কামাল হোসেন ভুঁইয়া। এসময় সিনিয়র সহকারী পুলিশ সুপার আছাদুজ্জামান এলাকাবাসীকে আতঙ্কগ্রস্থ না হওয়ার আহবান জানিয়ে বলেন, ‘প্রাথমিক ভাবে ধারনা করা হচ্ছে চরমপন্থীদের আধিপত্য বিস্তার ও আভ্যন্তরীণ কোন্দলের কারণে এ ঘটনা ঘটেছে। তবে এলাকাবাসী সাহসী পদক্ষেপে দূর্বৃত্তরা তাদের মিশন সফল করতে পারেনি।’ এ কারণে তিনি এলাকাবাসীদের ধন্যবাদ জানান।

এ সময় এলাকাবাসী এ এলাকায় একটি অস্থায়ী পুলিশ ক্যাম্পের দাবি করলে সহকারী পুলিশ সুপার বলেন, ‘অন্তার মোড় এলাকায় একটি পুলিশ ক্যাম্প স্থাপনের জন্য উর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত ভাবে জানানো হয়েছে। আশাকরি তা করা সম্ভব হবে।’

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here