বালিয়াকান্দির অদম্য মেধাবী ওয়ালিদ হাসান ॥ গান গেয়েই চালিয়ে যাচ্ছে লেখাপড়া

0
208

সোহেল রানা ॥
ইতিমধ্যে সাংস্কৃতিক অঙ্গণের চর্তুদিকে দক্ষিণবঙ্গের বিভিন্ন মঞ্চে গান গেয়ে মাতিয়ে তুলছে মোঃ ওয়ালিদ হাসান। সে রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নবাবপুর ইউনিয়নের কুরশী বালিয়াচর গ্রামের মরহুম আরশেদ আলীর ছেলে।
ওয়ালিদ হাসান বর্তমানে কুরশী উচ্চ বিদ্যালয়ের দশম শ্রেণীর ছাত্র। ছোট বেলা থেকেই ওয়ালিদ হাসান গানের প্রতি ছিল আগ্রহ। ছোট ছোট অনুষ্ঠানে গান করতে থাকে। এরই মাঝে বাবার মৃত্যুর পর যেন তার মাথার উপর আকাশ ভেঙ্গে পড়ার মতো অবস্থা। সংসার পরিচালনার পাশাপাশি লেখাপড়া চালিয়ে যেতে হবে। ভেবে পাচ্ছিল না কি করবে। এরই মধ্যে ফরিদপুর বিকাশ শিল্পী গোষ্টীর নিয়মিত শিল্পী হিসেবে জায়গা করে নেয় ওয়ালিদ। দেশের বিভিন্ন মঞ্চে গান গেয়ে যে উপার্জন হয় তা দিয়েই লেখাপড়ার খরচের পাশাপাশি সংসার পরিচালনা করে আসছে। ওয়ালিদের মঞ্চ পারফমেন্স দুর্দান্ত, সে ইতিমধ্যে আরটিভি মিউজিক, চ্যানেল এস টিভি ছাড়াও বিভিন্ন ইউটিউব চ্যানেলে রয়েছে অসংখ্য গান। ওয়ালিদের মঞ্চের তীক্ষè দখল, দর্শক কি চায় সেটা সহজে বুঝতে পারে। সে ইতিমধ্যে বাংলাদেশের ৩৮টি জেলাতে এত অল্প বয়সেই গান গেয়েছে। ওয়ালিদের নিজের লেখা ও সুর করা অনেক গান আছে, যে গানগুলো অনেক নামী-দামী শিল্পীরা গেয়েছেন। ওয়ালিদের লেখা ও সুর করা গান গুলোর মধ্যে “প্রেম করা সই প্রাণে মরা, মনের আগুন জ্বলে দ্বিগুন, আমার ভালবাসায় ছিল না ছলনা ”উল্লেখযোগ্য। ইংরেজী নববর্ষ উপলক্ষে শিঘ্রই ইউটিউব চ্যানেল খান মিডিয়ার ব্যানারে তার নিজের লেখা “আজ বড় কষ্টে আছি আমি” প্রকাশিত হতে যাচ্ছে।
ওয়ালিদ হাসান জানায়, আমি সকলের নিকট দোয়া কামনা করছি। আমার জন্য দোয়া করবেন আমি যেন একজন ভালো মানের শিল্পী হতে পারি। আমার এ শিল্পী হয়ে উঠার জন্য যে অকান্ত ভাবে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে এ কারণে বিকাশ শিল্পী গোষ্ঠীর সকলের প্রতি চির কৃতজ্ঞ।
ফরিদপুর বিকাশ শিল্পী গোষ্ঠীর সভাপতি সিরাজুল আলম বলেন, ওয়ালিদ হাসান দীর্ঘ ৮ বছর ধরে বিকাশ শিল্পী গোষ্ঠীর সাথে জড়িত। বিকাশ শিল্পী গোষ্ঠী পরিবারের সকলের আদরের, আমি সব সময় তার মঙ্গল কামনা করি। ওয়ালিদ হাসানের বয়স যখন ৮ বছর, তখন হতেই তার বাবার সাথে আসা যাওয়া করতো। ওয়ালিদ ভাল গান করে ও ভাল মঞ্চ পারফর্ম করে, তার ভবিষ্যৎ সুন্দর ও সুফল হোক এই কামনা করি।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here