“নরেন্দ্র মোদী: এক সত্যিকারের জাদুকর”

0
185

ডা. সুব্রত ঘোষ
স্বাস্থ্য ও জনসংখ্যা বিষয়ক সম্পাদক
বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ, সাতক্ষীরা জেলা শাখা
সম্পাদক, চিকিৎসক বার্তা।
২০১৪ সালের ২৬ মে সন্ধ্যায় রাষ্ট্রপতি ভবনের সামনের প্রাঙ্গণে ইতিহাস রচিত হয়। ঐ দিন নরেন্দ্র মোদী ভারতের মানুষের কাছ থেকে এক ঐতিহাসিক জনাদেশ পেয়ে প্রধানমন্ত্রী হিসাবে শপথ গ্রহণ করেন। নরেন্দ্র মোদীর মধ্যে ভারতের মানুষ একজন প্রাণবন্ত, স্থিরমতি এবং উন্নয়নমুখী নেতাকে দেখেছেন। যিনি শতকোটি ভারতীয়ের আশা-আকাঙ্খা রূপায়ণে এক আলোর প্রতীক হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন। উন্নয়নের ওপর তাঁর জোর, খুঁটিনাটি বিষয়ে তাঁর নজরদারি ও দরিদ্রদের মধ্যে দরিদ্রতম মানুষদের জীবনে গুণগত পরিবর্তনে তাঁর উদ্যোগ নরেন্দ্র মোদীকে একজন জনপ্রিয় এবং শ্রদ্ধাভাজন নেতা হিসাবে দেশে সর্বত্র প্রতিষ্ঠা দিয়েছে।
নরেন্দ্র মোদীর জীবন যেন সাহস, করুণা এবং নিরবচ্ছিন্ন কঠোর পরিশ্রমের এক অভিযাত্রা। খুব কম বয়সে তিনি মানুষের সেবায় নিজের জীবন উৎসর্গ করার সিদ্ধান্ত নেন। তৃণমূল স্তরের কর্মী হিসাবে, সংগঠক হিসাবে এবং তাঁর নিজের রাজ্য গুজরাটের ১৩ বছর মুখ্যমন্ত্রীত্বের কার্যকালের মেয়াদে প্রশাসক হিসাবে তাঁর দতা তিনি তুলে ধরেছেন। যেখানে, মানুষের জন্য এবং সুপ্রশাসনের জন্য তাঁর কাজের মধ্য দিয়ে তিনি এক অসাধারণ পরিবর্তন সাধন করেছেন।
খোদ ভারতে তাকে নিয়ে সমালোচনার অভাব নেই। তবে লোকটিকে আমি পছন্দ করি। শুধু সাম্প্রদায়িকতা দিয়ে কেউ বার বার জিতে আসতে পারেনা। ৫ বছর মতায় থাকার পরেও লোকটা প্রায় দুই তৃতীয়াংশ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে যখন ফিরে এলেন তখন অকারণে সমালোচনাকারীদের মুখ বন্ধ হওয়া উচিৎ।
মোদী বাংলাদেশের জন্য যা করেছেন তা ইতিহাস হয়ে থাকবে। ছিটমহল সমস্যার চূড়ান্ত সমাধান মোদীই করলেন স্বাধীনতার ৪৪ বছর পর। অবশ্য এই সমস্যা সেই ১৯৪৭ থেকেই বিদ্যমান। কেউ সাহস করেনি, মোদী করলেন। এরপর তিস্তার পানি বাংলাদেশকে দেবার জন্য লোকসভায় বিলও পাশ করলেন। কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের মমতা ব্যানার্জির অনুমোদনের অভাবে তা আটকে রয়েছে এখনও।
মোদীর বিরুদ্ধে আমরা সমালোচনা শুনেছি সেই ২০০২ সাল থেকেই। গুজরাট দাঙ্গার পর। তবুও গুজরাটে পর পর ৪ বার মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন তিনি। প্রতিবারই প্রায় দ্বিগুণ সংখ্যাগরিষ্ঠতা নিয়ে। খুব ভালো শাসক না হলে এবং জনগণ সত্যি সত্যি ভালো না বাসলে নির্বাচনের পর নির্বাচন দুই তৃতীয়াংশ মেজরিটি পাওয়া যায়? তারপর প্রধানমন্ত্রী হলেন। প্রথমবার পেলেন ৩৩৬ আসন। এবার ৩৫০ ছাড়িয়েছে। যদিও এবারের জয় আরো অনেক মহত্তর। মুখ্যমন্ত্রী হবার আগেও মোদী যখন বিজেপির সাংগঠনিক সম্পাদক বা সাধারণ সম্পাদক এসব পদে ছিলেন তিনি তুমুল জনপ্রিয় ছিলেন। তার প্রতি কর্মীদের ভালোবাসায় ঈর্ষান্বিত হয়ে গুজরাটের বড় বড় বিজেপি নেতারা তাকে দিল্লীতে নির্বাসনেও পাঠিয়েছিল। অথচ দল যখন দুঃসময়ে তখন নির্বাসন থেকে ফিরে এসে সেই ঈর্ষান্বিত সিনিয়র নেতাদের দ্বন্দ্ব মিটিয়ে বিজেপিকে ৭০% আসনে জিতিয়ে মতায় আনলেন মোদী। সময়টা ১৯৯৮। তারপর আবার নির্বাসন। আবার দিল্লীতে।
সাংগঠনিক সম্পাদক হবার আগে ১৯৮৭ সাল পর্যন্ত মোদী আরএসএসের বিভিন্ন পর্যায়ে দায়িত্ব পালন করেন। ১৮-২০ বছর বয়সে ঘর ছাড়েন। বিয়ে করেছিলেন, সংসার করলেন না। সন্ন্যাসী হয়ে গেলেন। হিমালয়ের পাদদেশে ও বিভিন্ন গুহায় ধ্যান করলেন কয়েক বছর। বলছি ১৯৬৮-৬৯ সালের কথা। স্ত্রীকে বলেছিলেন, মাফ করে দিও। আমার দ্বারা সংসার ধর্ম হবেনা। এরপর কপর্দকহীন মোদী আরএসএস কর্মী হিসেবে সংগঠনের অফিস ঝাড়ু দিতেন প্রথমদিকে। চরম দারিদ্র্যের মধ্য দিয়ে জীবন অতিবাহিত করেও নীতিতে অটল ছিলেন। অসাধারণ বাগ্মী ছিলেন, প্রচুর পড়ালেখা করতেন। ম্যাট্রিক দেবার পর দরিদ্র পরিবারের সন্তান মোদীর পড়ালেখা এগোয় নি। গুজরাটের এক প্রবীণ অকৃতদার আরএসএস কর্মী উকিল সাহেবের অনুপ্রেরণায় মোদী আবার পড়তে শুরু করলেন। দিল্লী বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীনে উন্মুক্ত শিা কার্যক্রমের অধীনে স্নাতকোত্তর করলেন মোদী ধীরে ধীরে। নিজ যোগ্যতায় আরএসএসের একজন গুরুত্বপূর্ণ ব্যক্তি হয়ে উঠলেন ৩০ বছর বয়সেই। ৩৫ বছর বয়সে আনুষ্ঠানিকভাবে যোগ দিলেন বিজেপিতে। এ ছিল তার যোগ্যতার পুরষ্কার।
মোদীর পরিবার নিয়ে দু’টো কথা বলবো। মোদীর পিতা দামোদরদাস মোদী গত হয়েছেন অনেক আগেই। তিনি চা বিক্রি করে সংসার চালাতেন। কিন্তু মা হীরাবেন এখনও বেঁচে আছেন, ৯৯ বছর বয়স তার। পুত্রের বিজয়ে তিনি খুব খুশী। কিন্তু এই মহিলা এখনও গুজরাটের সেই আটপৌঢ়ে বাড়িতেই বাস করেন। খুবই সাধারণ ঘরদোর। মোদীর আরো ৪ ভাই, ১ বোন আছে। বোনটি গৃহিণী। বড় ভাই সোম মোদী স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে চাকরি করতেন, এখন পেনশনভোগী। আরেক ভাই অমরুত মোদী ছিলেন মেশিন অপারেটর, এখন অবসরপ্রাপ্ত। আরেক ভাই প্রহাদ মোদী মুদি দোকানদার। সর্বশেষ ছোটভাই পংকজ মোদী তথ্য বিভাগে কর্মরত একজন কেরানী। আর মোদীর স্ত্রী যার সাথে তিনি কখনও সংসার করেন নি সেই যশোদাবেন একজন অবসরপ্রাপ্ত প্রাইমারী স্কুল শিকিা, পেনশনভোগী।
মোদী ২০১৪ সালে যখন প্রধানমন্ত্রী হলেন তখন তার পরিবার, ঘরদোরের ছবি দেখেছিলাম। দেখে চোখ কপালে উঠার জোগার। এত সাধারণ! মোদীর ভাই, ভাতিজা, তাদের নাতিপুতিরা সমাজে কোন স্পেশাল স্ট্যাটাস পায় না। তাদের ঘর যেমন সাধারণ, পোশাক আশাক আরো মলিন। বাড়িতে বেশি অতিথি আসলে চেয়ার দেয়াই মুশকিল। দেখে বিস্মিত হলাম। আমাদের দেশে ছোটখাটো চেয়ারম্যান হলে তার পরিবারের ভাগ্য বদলে যায়। আরো মোদী প্রধানমন্ত্রী হয়েও পরিবারের জন্য কিছু করতে পারেন নি। হয়তো এই ব্যর্থতার জন্যই জনগণের নিকট তিনি গ্রহণযোগ্য। পরিবারতন্ত্র, নেপুটিজম, জাতিভেদ এসবের বিরুদ্ধে দাঁড়িয়ে তিনি জাতপাতের রাজনীতি ও গান্ধীদের বংশবাদী রাজনীতির বুকে পেরেক ঠুকেছেন। গান্ধীরা ভারতের অলিখিত রাজ পরিবার নয়, এটা প্রতিষ্ঠিত করাই মোদীর বৃহত্তম অর্জন।
মোদীকে নিয়ে মুগ্ধতার শেষ নেই। যারা মোদীর সম্পর্কে জেনেছে তারা লোকটাকে সম্মান না করে থাকতে পারবে না। ঘৃণা, সমালোচনা যারা করে এরা মোদীর ব্যাপারে প্রায় কিছুই জানেনা। পুরো ব্যাপারটাই হুজুগে। মোদী গতবার জিতেছিলেন ৩৩৬ আসনে, তখন বিরোধীরা আলাদা আলাদা ছিলেন। এবার অনেক বিরোধীদল একজোট হয়ে লড়েছে। উত্তরপ্রদেশ থেকেই বিজেপি ২০১৪ সালে ৮০ টির মধ্যে ৭৩ টি সিট জিতেছিল। সেখানে এবার বিজেপির বিরুদ্ধে প্রায় সর্বদলীয় জোট হয়েছিল। অবশ্য সব দল সমর্থন দিয়েও উত্তরপ্রদেশের আমেথি আসন থেকে রাহুল গান্ধীকে জেতাতে পারে নি। এছাড়া সম্প্রতি বেশ কয়েকটা রাজ্যে বিজেপি একটু খারাপ ফল করলো। রাহুল গান্ধী ভেবেছিল যে সব তার নিজের সাফল্য। আসলে ওসব আসনে দীর্ঘদিন ধরে বিজেপি মতায় থাকায় এন্টি-ইনকামবেন্সি ছিল। আর জনগণের ােভ যা ছিল স্থানীয় নেতাদের প্রতি, মোদীর প্রতি নয়। তাই দেখা গেল ওসব রাজ্যের প্রায় ৯৫% আসনই মোদী জিতে গেছে। তাছাড়া অন্ধ্রপ্রদেশ, তেলেঙ্গানায় বিজেপি আগেরবারের মত জোট করে লড়তে পারেনি। তবুও আগের বারের চেয়ে প্রায় ৬-৭% ভোট বেশি পেয়েছে বিজেপি। আসনও বেড়েছে। এসব মোদীর ক্যারিশমা আর সুশাসনের জন্যই হয়েছে। অন্যায্য সমালোচনা লোকে পছন্দ করেনা তার প্রমাণ পশ্চিমবঙ্গের রেজাল্ট। বামপন্থীরা ফিরেছে শূণ্য হাতে।
সত্যি বলতে কি সকলেরই ন্যায্য সম্মান, শ্রদ্ধা পাওয়ার অধিকার আছে। আপনি তাকে বঞ্চিত করলে তিনি আরো সম্মানিত হবেন অন্যদিক থেকে, আপনিই অসম্মানিত হবেন। কথাটি পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশ উভয় অংশের জনগণের উদ্দেশ্যেই বললাম।
বিজেপি’র সংগঠনের অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ এক ব্যক্তি থেকে দেশের অন্যতম সুপ্রশাসক হিসাবে স্বীকৃত এক নেতা হিসাবে এক দশকে নরেন্দ্র মোদীর উত্থানে লুকিয়ে আছে সহজাত দৃঢ়তা এবং প্রচণ্ড প্রতিকূলতার মধ্যেও শক্তিশালী নেতৃত্ব প্রদানের এক অসাধারণ কাহিনী। রাজনৈতিক সংগঠন থেকে নরেন্দ্র মোদীর প্রশাসনিক জীবনে কর্মপরিবর্তনে তিনি সময় বা প্রশিণের কোনও সুযোগ পাননি। প্রশাসনিক জীবনের প্রথমদিন থেকেই শ্রী মোদী’কে কাজের মধ্য দিয়েই প্রশাসনের রীতিনীতির বিষয়ে শিা নিতে হয়েছে। প্রশাসক হিসাবে কাজের মেয়াদের প্রথম ১০০ দিনেই নরেন্দ্র মোদী দেখিয়েছেন কিভাবে তাঁর মধ্যে ব্যক্তিগত পর্যায়ে এই পরিবর্তন প্রভাব ফেলেছে। শুধু তাই নয়, এই ১০০ দিনের কাজের সময়কালেই তিনি এও দেখিয়েছেন কিভাবে বাঁধা গতের বাইরে গিয়ে স্থিতিশীলতার পরিবর্তন করতে হয় এবং প্রশাসনিক সংস্কার করতে হয়।
উন্নয়ন এবং সুপ্রশাসনের উজ্জ্বল উদাহরণ হিসাবে জাগ্রত গুজরাট সৃষ্টি করতে নরেন্দ্র মোদীর রাস্তা মোটেই সহজ ছিল না। এই রাস্তা ছিল প্রতিকূলতা এবং চ্যালেঞ্জে ভরা। গত এক দশক ধরে নরেন্দ্র মোদীর চরিত্রের যে বৈশিষ্ট্যটি অপরিবর্তিত থেকেছে, তা হল – প্রচণ্ড প্রতিকূলতার মধ্যেও তাঁর নেতৃত্বদানের শক্তি। সুপ্রশাসনের েেত্র নরেন্দ্র মোদীর দৃষ্টিভঙ্গি হিসাবে তিনি সবসময়েই রাজনীতির উর্ধ্বে উঠতে চেয়েছেন। উন্নয়নের চ্যালেঞ্জ মোকাবিলার কাজে শ্রী মোদী কখনই রাজনৈতিক মতপার্থক্যকে প্রতিবন্ধক হতে দেননি। যখন শ্রী নরেন্দ্র মোদী ভারতের পরবর্তী প্রধানমন্ত্রী হিসাবে দায়িত্বভার গ্রহণের প্রস্তুতি শুরু করেছেন তখনও প্রশাসন এবং সরকার পরিচালনার েেত্র তাঁর মধ্যে মিলিয়ে দেবার চিন্তাভাবনা কাজ করেছে। ‘ন্যূনতম সরকার, সর্বাধিক সরকারি পরিচালনামূলক কাজ’ – শ্রী মোদীর এই দর্শনের সবচেয়ে সুন্দর নিদর্শন হচ্ছে ঐক্যবদ্ধ সুপ্রশাসনের জন্য তাঁর ‘পঞ্চ – অম্রুত’ সংগঠন ভাবনা।
জাতীয় এবং আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমের কাছ থেকে তিনি যেসব পুরষ্কার পেয়েছেন তার মধ্যেই তাঁর কাজের স্বীকৃতি প্রতিফলিত হয়েছে। ভারতের প্রধানমন্ত্রী হিসেবে নরেন্দ্র মোদী ভারতের একটি অঙ্গরাজ্যের সবচেয়ে সফল মুখ্যমন্ত্রী এবং অন্যতম শ্রেষ্ঠ প্রশাসকের সমৃদ্ধ অভিজ্ঞতা সঙ্গে এনেছেন।
আজ স্বাধীন বাংলাদেশ উদযাপন করছে তার জাতির পিতার জন্মশতবর্ষ। ঠিক সেই সময়ই বাংলাদেশ-ভারত দ্বিপাকি সম্পর্কেরও ৫০ বছর পূর্ণ হতে চলেছে। আমাদের স্বাধীনতা ও ভারত-বাংলাদেশ সম্পর্কের সুবর্ণজয়ন্তী এবং মুজিববর্ষ পালন উপলে ২৬ মার্চ ঢাকায় আসবেন ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি। উভয় দেশের গৌরবোজ্জ্বল ইতিহাসকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণে অবিচ্ছেদ্য অভিন্ন সম্পর্ক নিয়ে দুই রাষ্ট্রনায়ক শেখ হাসিনা ও নরেন্দ্র মোদি কথা বলবেন। করোনার এই সময়কালে ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি’র এটিই প্রথম বিদেশ সফর।
এই দীর্ঘ ৫০ বছর সম্পর্কের পরীায় বাংলাদেশ-ভারতের বন্ধুত্ব উজ্জ্বল দ্যুতি ছড়িয়েছে। আজ ভারত বাংলাদেশ সম্পর্কে ‘গোল্ডেন এজ’ বা ‘সোনালি অধ্যায়’ বলে আখ্যায়িত করছে দুই দেশই। প্রত্যাশা দ্রুত বন্ধুত্বের মধ্য দিয়েই মীমাংসিত হবে অমীমাংসিত বিষয়াদি। আগামী দিনের প্রত্যাশা আরও সুদৃঢ় ও মজবুত হবে দুই বন্ধুত্বপূর্ণ দেশের সম্পর্ক। একে অপরের প্রয়োজনে সর্বদা পাশে থাকবে অতীতের মতোই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here