ফেরিতে উপেক্ষিত স্বাস্থ্যবিধি ॥ দৌলতদিয়ায় ফেরিতে গাঁদাগাদি করে পার হচ্ছে মানুষ

0
133

প্রাণঘাতি করোনা ভাইরাস সংক্রমন রোধে সারাদেশে লকডাউন। লকডাউনের তৃতীয় দিনে দৌলতদিয়া-পাটুরিয়া নৌরুটে সরকারী নির্দেশনা ছিল অনেকটাই উপেক্ষিত। নৌপরিবহন মন্ত্রনালয়ের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী লঞ্চ পারাপার পুরোপুরি বন্ধ আর ফেরিতে জরুরী প্রয়োজনে এ্যাম্বুলেন্স ও কাচামালবাহি ট্রাকগুলো পারাপার করার কথা থাকলেও তা মানছেন না যাত্রীরা।
বুধবার সরেজমিন দৌলতদিয়া ফেরি ঘাটে দেখা যায়, লঞ্চ চলাচল বন্ধ আছে। কিন্তু গণ পরিবহন চালু হওয়ায় বিভিন্ন উপায়ে হাজার হাজার যাত্রীরা ঘাটে এসে জরুরী পারাপারের জন্য চলাচলকারী ফেরিতে হুমরি খেয়ে পড়ছে। চলাচলকারী ফেরিগুলোতে যানবাহনের পাশাপাশি অসংখ্য সাধারন যাত্রী স্বাস্থ্যবিধির তোয়াক্কা না করে গাঁদাগাদি করে নদী পার হচ্ছে। অনেকের মুখেই আবার মাস্কও নেই। আবার থাকলেও যথাযথ ভাবে তা পড়েননি।
এ বিষয়ে জোরালো কোন পদক্ষেপও চোখে পড়েনি। যে কারনে ফেরিতে এ্যাম্বুলেন্সের পাশাপাশি বিভিন্ন কোম্পানির কাভার্ড ভ্যান, কুরিয়ার সার্ভিসের ট্রাক ও অন্যান্য ট্রাক পারাপার করতে দেখা গেছে। এ সময় ঢাকা থেকে আশা কুষ্টিয়াগামী যাত্রী শফিকুল ইসলাম বলেন, লকডাউন চলছে। মনে হচ্ছে লকডাউন আরো বাড়বে। তাই ঢাকায় বসে বসে না খেয়ে নীজ বাড়ি যাচ্ছি। কিন্তু ফেরিতে এসে মনে হচ্ছে করোনার সংক্রমন এখান থেকেই শুরু হলো। তিনি আরো বলেন, ফেরিতে কেউ কারো কথা শুনছেন না।
এদিকে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী জরুরী পন্যবাহি ট্রাক পারাপারের কথা বিবেচনা করে মধ্যরাত থেকে সকাল পর্যন্ত রুটের ১৬টি ফেরিই যানবাহন পারাপার করে। এছাড়া সারাদিন সীমিত করা হয় ফেরি চলাচল। এতেকরে সারাদিনই পন্যবাহি ট্রাকের দীর্ঘ সারি থাকে মহাসড়কে।
ট্রাক চালক আমিনুর রহমান জানান, আমরা ফেরি চলাচল স্বাভাবিক থাকার খবর পেয়ে কুষ্টিয়া থেকে এসেছি। কিন্তুু এখন ঘাটে বসে থাকতে হচ্ছে। প্রচন্ড গরমে খাবার, গোসল, প্রসাব পায়খানার কষ্ট হচ্ছে। শত শত ট্রাক সিরিয়ালে পড়েছে বিষয়টি দেখার যেন কেউ নেই।
বিআইডব্লিটিসি দৌলতদিয়া ঘাট ব্যবস্থাপক ফিরোজ শেখ জানান, এই নৌরুটের ১৬ টি ফেরি সচল রয়েছে। কিন্তু লকডাউনের কারনে কর্তৃপক্ষের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী সকাল ১১ টার পর থেকে মাত্র ২ টি ফেরি দিয়ে জরুরী যানবাহন এ্যাম্বুলেন্স ও পচনশীল পন্যবাহি ট্রাক পারাপার করা হচ্ছে। যে কারনে ঘাটের উভয় পারে কিছু ট্রাক আটকা পড়েছে। তবে রাতের বেলায় আটকে থাকা পচনশীলসহ সকল ট্রাকগুলোকে পার করা হবে বলেও জানান তিনি। এছাড়া চলচলরত ফেরিতে সাধারন যাত্রীদের উঠতে নিষেধ করলেও তারা তা মানছে না।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here