1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
বৃহস্পতিবার, ১৮ অগাস্ট ২০২২, ০৪:৪৫ পূর্বাহ্ন
Title :
রাজবাড়ীর শিক্ষার্থীদের মাঝে গাছের চারা বিতরণ ‘দূস্কৃতিকারী যারাই হোক ছাড় দেওয়া হবে না’ -জিল্লুল হাকিম এমপি সারাদেশে সিরিজ বোমা হামলার প্রতিবাদে রাজবাড়ীতে যুবলীগের বিক্ষোভ কথা রাখছে না বিদ্যুত বিভাগ গোয়ালন্দে ৩৫০০ দূর্বল শিক্ষার্থীর জন্য বিশেষ ক্যাচ-আপ ক্লাবের যাত্রা শুরু বঙ্গবন্ধু ভ্রাম্যমাণ রেল জাদুঘর এখন রাজবাড়ীতে, দর্শনার্থীদের উপচে পড়া ভির রাজবাড়ীতে ৫১ জন দুস্থ ও তৃতীয় লিঙ্গের মাঝে সেলাই মেশিন বিতরণ খালেদা জিয়ার জন্মবার্ষিকী ও রোগমুক্তি কামনায় রাজবাড়ীতে দোয়া মাহফিল গোয়ালন্দে ডাকাতির প্রস্তুতিকালে ২জন গ্রেপ্তার বালিয়াকান্দিতে স্কুলে শোক দিবসে বাজলো হিন্দি গান, তদন্ত কমিটি গঠন

বালিয়াকান্দিতে মৎস্য দপ্তরে প্রশিক্ষণের নামে হরিলুটের অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৭
  • ১০১৯ Time View
SAMSUNG CAMERA PICTURES

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলা মৎস্য দপ্তরে প্রশিক্ষণের নামে হরিলুট চলছে বলে অভিযোগ উঠেছে। এতে সরকারের মহৎ উদ্দেশ্য সফল হচ্ছে না।

 




উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা শিরিন শারমিন খান জানান, উন্মুক্ত জলাশয়ে বিল নাসারী স্থাপন এবং পোনা অবমুক্তরণ প্রকল্পের আওতায় ২০১৭-১৮ অর্থ বছরে মৎস্যচাষী ও জেলেদের ২দিনব্যাপী প্রশিক্ষণ সোমবার থেকে শুরু করা হয়েছে। ২৫জন করে অংশগ্রহন করছে। দিনব্যাপী প্রশিক্ষণে ৪০ হাজার টাকা বরাদ্দ রয়েছে। জনপ্রতি সম্মানী পাবে ৩শত টাকা, ২শত টাকার খাবার ও অন্যান্যে উপকরণ।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, সোমবারের উপজেলা মৎস্য দপ্তরে প্রশিক্ষণে ২০জন অংশগ্রহন করে। নিন্মমানের ৮০ টাকা থেকে ১শত টাকার মধ্যে খাবারের প্যাকেট, ৫ টাকার খাতা, ৫ টাকার কলম প্রদান করা হয়। এতে প্রথম দিনের সর্বোচ্চ খরচ হয়েছে ৮ হাজার ৪শত টাকা। ২দিনে সর্বোচ্চ ১৬ হাজার ৮শত টাকা প্রশিক্ষণ ব্যায় হবে। বাকী অর্থ মৎস্য কর্মকর্তার পকেটে চলে যাবে। এভাবেই চলছে মৎস্য অধিদপ্তরের দিনের পর দিন প্রশিক্ষণ। প্রশিক্ষণ সম্পর্কে অফিসের অনেক স্টাফই জানে না। যাদেরকে প্রশিক্ষক হিসেবে নাম রয়েছে তারাও অবহিত নয়। নিজেই নামে মাত্র আলাপ আলোচনার নামে প্রশিক্ষণ প্রদানের মধ্যে দিয়ে শেষ করছেন। বিষয়টি খতিয়ে দেখে ব্যবস্থা গ্রহন করা উচিত বলে মনে করেন সচেতন মহল।

প্রশিক্ষণে আসা কয়েকজনের সাথে কথা বললে নাম না প্রকাশের শর্তে বলেন, আমরা কিছু বলি না, কারণ তাহলে আর প্রশিক্ষণে ডাকবে না। যত সামান্য যা সম্মানী প্রদান করে ও উপকরণ দেয় তা নিয়েই খুশি থাকতে হয়। ৫ টাকার একটি কলম, ৫ টাকার খাতা, ৮০ থেকে ১শত টাকার মধ্যে খাবার দেওয়া হয়। অনেক সময় নাস্তা দিয়েও প্রশিক্ষণ শেষ করা হয়। সম্মানীর ক্ষেত্রেও তাদের উপরই ভরসা। দেড় থেকে ২শত টাকার উপরে কোন দিনই প্রদান করা হয়নি। বিষয়টি আপনারা দেখলে সঠিক ভাবে প্রশিক্ষণ হবে।

খাবার সরবরাহকারী হোটেল মালিক জানান, মৎস্য দপ্তরে যে খাবার সরবরাহ করা হয়েছে তার মুল্যে প্রতি প্যাকেট ১২০ টাকা। কি ভাবে ভাউচার করে তা তাদের জানা নেই।

এদিকে বৃহত্তর ফরিদপুর জেলার মৎস্য উন্নয়ন প্রকল্পের সচেতনতা সৃষ্টির জন্য বিলবোর্ড স্থাপনের জন্য ৫০ হাজার টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হলেও টাকা উত্তোলন করার পর প্রকল্পের মেয়াদ শেষ হলেও অদ্যবদী বিলবোর্ডটি স্থাপন না করেই পুরো টাকা আতœসাৎ করেছে। বিলবোর্ডটি বালিয়াকান্দি পাইলট বালিকা উচ্চ বিদ্যালয় ভবনের দেওয়ালের সাথে পড়ে রয়েছে। বিষয়টি রাজবাড়ী জেলা মৎস্য কর্মকর্তা মজিনুর রহমানকে অবগত করা হলেও তিনি ব্যবস্থা নেওয়ার আশ্বাস দিয়েই রহস্যজনক ভাবে নিরব রয়েছেন।

এ ব্যাপারে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি জানান, এসব প্রশিক্ষণের বিষয়ে আমি ওয়াকিবহাল নয়। খোঁজ নিয়ে দেখছি।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution