1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৪:১৩ অপরাহ্ন
Title :
অতিরিক্ত দামে তেল বিক্রি করছেন রাজবাড়ীর সকল ফিলিং ষ্টেশন গোয়ালন্দে ৪ কেজি গাজাসহ যুবক গ্রেফতার পাংশায় কবি সাহিত্যিকদের মিলন মেলায় গুনীজন সংবর্ধনা প্রধামমন্ত্রীর জনসভা থেকে চুরি হওয়া ফোনসেট গোয়ালন্দে উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২ পাংশায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সংবর্ধনা পাংশায় জাল সনদে চাকুরীর অভিযোগ ‘বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব’ গোয়ালন্দে কৃষকলীগের সম্মেলনে নূরে আলম সিদ্দিকী হক ‘বিএনপি ভ্যান চালকদের নিকট থেকে চাল কেড়ে নিয়েছে’ -জিল্লুল হাকিম এমপি গোয়ালন্দে সহস্রাধিক সুবিধাবঞ্চিত শিশু নিয়ে দিনব্যাপী ব্যাতিক্রমী আয়োজন গোয়ালন্দে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সহায়তা প্রদান

শহীদ দিয়ানত আজও ঠাঁই পায়নি শহীদদের তালিকায়

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ১৩৯০ Time View

সোহেল রানা ॥
রাজবাড়ীর কালুখালী উপজেলার সাওরাইল ইউনিয়নের ভিটি গ্রামের শহীদ দিয়ানত আলী। আজও জাতীয় শহীদদের তালিকায় স্থান হয়নি।

রাজবাড়ী জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিলের সদস্য, নারুয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান ও শহীদ দিয়ানত আলীর সহযোদ্ধা আঃ খালেক মন্ডল জানান, শহীদ দিয়ানত আলী একজন মহান স্বাধীনতা যুদ্ধের সৈনিক। তার নিজের কোন ভাই-বোন নেই। বাবার একমাত্র ছেলে। বাল্যকালে তিনি মৃগী সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে পড়ালেখা শুরু করেন। পরবর্তীকালে বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া লিয়াকত আলী স্মৃতি উচ্চ বিদ্যালয় থেকে ১৯৬৬ সালে মেট্রিক পাশ করেন। ৯৬৮ সালে রাজবাড়ী কলেজ থেকে আইএ পাশ করার পর বিএ’তে অধ্যায়নরত ছিলেন। ইতিমধ্যেই তৎকালীন পাকিস্তান জাতীয় নির্বাচনী প্রচার-প্রচারনা ও আন্দোলন শুরু হয়ে যায়। এরপর স্বাধীনতার মহান স্থপতি, জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৬দফা ও ১১দফা কর্মসুচি আন্দোলন শুরু হয়ে যায়। এসকল আন্দোলনে শহীদ মুক্তিযোদ্ধা দিয়ানত আলী সক্রিয় ভাবে অংশ গ্রহন করেন।

১৯৭১ সালে মে মাসের প্রথম দিকে তিনি পায়ে হেটে ভারত চলে যান। সেখানে দেরাদুন থেকে অস্ত্র চালানো প্রশিক্ষণ নেন। মুজিব বাহিনীর কমান্ডার অধ্যাপক আব্দুর রবের সাথে অস্ত্রসহ বাংলাদেশে প্রবেশ করেন। এলাকার যুব সমাজকে সংগঠিত করে একটি বাহিনী গঠন করেন। ৮নং সেক্টরে মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার লাঙ্গলবাঁধ, কালুখালী, রাজবাড়ীসহ বিভিন্ন এলাকায় যুদ্ধে অংশ গ্রহন করেন। ১৯৭১ সালের ১৪ই ডিসেম্বর রাজবাড়ীর যুদ্ধে শত্রু বাহিনীর পর পর তিনটি গুলিতে তিনি গুরুতর আহত হন। পরে অতিরিক্ত রক্তক্ষরনে মাটিপাড়া মুক্তিযোদ্ধা ক্যাম্পে চির নিদ্রায় ঘুমিয়ে যান। সেখান থেকে গরুর গাড়ীতে করে প্রায় ৫০ কিলোমিটার দুরে নিজ এলাকা মৃগী বাজারে নিয়ে আসা হয়। মৃগী বাজার জামে মসজিদের পাশে হাজার হাজার মানুষের উপস্থিতিতে দাফন করা হয়। কিন্তু দুঃখের বিষয় শহীদ দিয়ানত আলী জাতীয় শহীদদের তালিকায় আজও লিপিবদ্ধ হননি।

তিনি আরো জানান, শহীদ দিয়ানত আলীর স্মৃতি অ¤্রান করে রাখতে মৃগীতে শহীদ দিয়ানত আলী কলেজ প্রতিষ্ঠা করা হয়। কলেজ প্রতিষ্ঠা করতে গিয়েও অনেক রক্ত ঝড়েছে, আর মামলা, হামলার শিকার হতে হয়েছে। আজ কলেজটি শহীদ দিয়ানত আলীর স্মৃতি বহন করে আছে। তবে কলেজটি জাতীয়করণ করার দাবী জানান তিনি।

তিনি বলেন, শহীদ দিয়ানত আলীর সমাধিতে জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ড কাউন্সিল, মৃগী শহীদ দিয়ানত আলী কলেজের পক্ষ থেকে ১৪ ডিসেম্বর শহীদ বুদ্ধিজীবি দিবস ও শহীদ দিয়ানত আলীর মৃত্যু বার্ষিকী উপলক্ষে সমাধীতে পুষ্পস্তবক অর্পন ও দোয়া অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution