গোয়ালন্দে স্কুলছাত্রকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মামলা

0
389

গোয়ালন্দে পারিবারিক কলহের জের ধরে তুষার শেখ (১৬) নামের এক দশম শ্রেণি ছাত্রকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় ৭জনকে আসামী করে মামলা করেছেন নিহতের বাবা আসলাম হোসেন। রোববার বিকেলে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় এ মামলা করেন তিনি।
মামলায় আসামী করা হয়েছে ফারদিন ইসলাম বাধন, তার বাবা শহিদুল ইসলাম পলাশ, পলাশের স্ত্রী ফেরদৌসী পারভীন এবং তাদের আত্মীয় আক্কাছ প্রামানিক, মাফু প্রামানিক, বাশার ও শাজাহানকে।
গত শনিবার বেলা ১০টার দিকে গোয়ালন্দ উপজেলার উচানচর ইউনিয়নের বিশ্বনাথ পাড়া গ্রামে এ হত্যাকান্ডে ঘটনা ঘটে। নিহত স্কুলছাত্র তুষার উপজেলার উচানচর ইউনিয়নের বিশ্বনাথ পাড়া গ্রামের আসলাম হোসেনের ছেলে ও গোয়ালন্দ নাজির উদ্দিন সরকারি পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ১০ম শ্রেনীর ছাত্র। এ ঘটনায় নিহত তুষারের আপন চাচাতো ভাই অভিযুক্ত বাধন (১৯) ও তার মা ফেরদৌসী পারভীন (৪২) কে আটক করেছে গোয়ালন্দ ঘাট থানা পুলিশ। আটককৃতরা পলাশ শেখের ছেলে ও স্ত্রী।
প্রতিবেশীদের সাথে কথা বলে জানা যায়, পারিবারিক বিভিন্ন বিষয় নিয়ে আসলাম শেখ ও তার ভাই পলাশ শেখের মধ্যে মনোমালিন্য চলে আসছিল। শনিবার সকালে ঝারফুঁক করার জন্য পলাশ শেখ বাড়িতে ফকির আনে। এতে ক্ষিপ্ত হয়ে আসলাম শেখ আগত ফকিরকে গালাগালি করে তাড়িয়ে দেয়। এ নিয়ে দুই ভাইয়ের পরিবারের মধ্যে ঝগড়া বাঁধে। এক পর্যায়ে তা সংঘর্ষে রূপ নেয়। এসময় পলাশ শেখের ছেলে বাধনের ধারালো অস্ত্রের কোপে তার চাচাতো ভাই তুষার গুরুতর আহত হয়। স্থানীয়রা তাকে উদ্ধার করে ফরিদপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেয়ার পথে তার মৃত্যু হয়।
নিহত তুষারের বড় চাচা আবুল হোসেন, চাচাতো ভাই শারাফাত হোসেন শাকিব সহ প্রত্যক্ষদর্শী কয়েকজন জানান, তার ছোট দুই ভাই পলাশ ও আসলামের মধ্যে জমিজমা নিয়ে কিছু বিরোধ ছিল। আমরা সম্প্রতি তাদের মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে আলাদা আলাদাভাবে জমিজমা বুঝিয়ে দেই। শনিবার পলাশ তার বাড়ি ঝাড়ফুঁক দিতে ফকির ডেকে আনে। এ নিয়ে উভয় পরিবারের মধ্যে কথা কাটাাকাটি শুরু হয়। এক পর্যায়ে পলাশ শেখ, তার বৌ ফেরদৌসী ও ছেলে বাঁধন ঘর থেকে ছুরি-বটি নিয়ে এসে আসলামের পরিবারের উপর হামলা চালায়। এর এক পর্যায়ে বাঁধন তার হাতে থাকা ছুরি দিয়ে তুষারের গলায় ও শরীরের বিভিন্ন স্থনে আঘাত করে। এ ঘটনায় নিহত তুষারের বাবা আসলাম শেখও রক্তাক্ত জখম হয়েছেন।
গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, ঘটনা জানার পর অভিযুক্ত বাধন ও তার মা ফেরদৌসী বেগমকে আটক করা হয়েছে। নিহতের লাশ ফরিদপুরে ময়নাতদন্ত শেষে পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here