মসজিদে জনসচেতনতায় বিশেষ বক্তব্য দিয়ে পুরষ্কৃত হলেন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি

0
275

আধুনিক পুলিশিং ব্যবস্থা ও সকল শ্রেণির জন সাধারনের আস্থা অর্জনে নিরলস ভাবে কাজ করে যাচ্ছে বর্তমান পুলিশ। এরই ধারাবাহিকতায় গত ৪ জুন শুক্রবার জুমার নামাজের পূর্বে জনসচেতনতায় বিশেষ বক্তব্য রাখেন গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর। তার এই বক্তব্য পুলিশের ঢাকা রেঞ্জের শ্রেষ্ঠ বক্তব্য হিসেবে বিবেচিত হয়েছে।
মঙ্গলবার রাজবাড়ী পুলিশ সুপারের কার্যালয়ে পুলিশ সুপার শাকিলুজ্জামান ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীরের হাতে সনদ ও উপহার তুলে দেন।
এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার ওসি আব্দুল্লাহ আল তায়াবীর জানান, ঢাকা রেঞ্জের উপ-মহা পরিদর্শক (ডিআইজি) হাবিবুর রহমান বিপিএম (বার), পিপিএম (বার) স্যারের নির্দেশক্রমে শুক্রবার জুম্মার নামাজের আগে এ জনসচেতনতামূলক বক্তব্য প্রদান করি। বক্তব্যে ৯৯৯ একটি পুলিশের জাতীয় পরিসেবা, এর মাধ্যমে যে কোন আইনগত সহায়তা প্রদান সর্ম্পকে অবগত করা। বাসা-বাড়িতে ভাড়াটিয়াদের সর্ম্পকে তথ্য সংগ্রহ করা, যার কারণে যে কোন ভাড়াটিয়াদের সর্ম্পকে সকল তথ্য থানায় সংগ্রহ থাকে। এতে মাদক ব্যবসায়ী সর্ম্পকে অবগত করা বা তাদেরকে সচেতন করে তোলা। এছাড়া সাইবার ক্রাইম সর্ম্পকে সবাইকে অবগত করা। কম্পিউটার বা মুঠোফোনের মাধ্যমে সাইবার ক্রাইম হতে পারে, তা থেকে সবাই সতর্ক থাকা। ক্লোজ সার্কিট ক্যামেরার (সিসি) প্রয়োজনীয়তা সর্ম্পকে সবাইকে অবগত করি। অপরদিকে গুজব সর্ম্পকে সবাইকে সর্তক করা বা সচেতন করা, কিশোর গ্যাং এর খারাপ দিক সর্ম্পকে জনগনকে সচেতন করা। উঠতি বয়সী ছেলে-মেয়েদের প্রতি বিশেষ নজর দেওয়া। যাহাতে তারা কিশোর গ্যাংয়ের মতো খারাপ দিকে ঝুঁকে না যায়। জঙ্গীদের সর্ম্পকে স্থানীয় থানা পুলিশকে অবগত করা। ইসলাম একটি শান্তির ধর্ম। ইসলামে কোন সন্ত্রাসী বা জঙ্গীদের স্থান নাই। এমন বিষয় ভিত্তিক পয়েন্ট সহ অনেক গুরুত্বপূর্ণ বিষয়ের উপর আলোকপাত করা হয় বক্তব্যে।
তিনি আরো বলেন, ‘যে কোন পুরষ্কারই কাজের স্বীকৃতি। আর স্বীকৃতি পেলে কাজের স্পৃহা বেড়ে যায়। পুরস্কারের জন্য আমাকে মনোনীত করায় রাজবাড়ীর পুলিশ সুপার স্যার, ডিআইজি স্যারসহ সংশ্লিষ্ট উর্দ্ধতন কর্মকর্তাদের প্রতি আমি কৃতজ্ঞ’।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here