মদে মাতাল নেতা, অতঃপর শ্রীঘরে

0
524

মধ্যরাতে মদ খেয়ে মাতলামির দায়ে পুলিশের হাতে গ্রেফতার হয়েছেন গোয়ালন্দ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মো. নয়ন মণ্ডল (৩৫)। আদালতের মাধ্যমে তাকে কারাগারে পাঠানো হয়েছে। এছাড়া তাকে সংগঠন থেকেও সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে বলে জানা গেছে।
উপজেলার দৌলতদিয়া যৌনপল্লী সংলগ্ন রেলওয়ে রেলস্টেশন এলাকা হতে বুধবার রাত সোয়া ১২টার দিকে তাকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি স্থানীয় শামসু মাস্টারপাড়ার মৃত শামসু মাস্টারের ছেলে।
পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, নয়ন মঙ্গলবার মধ্যরাতে যৌনপল্লীর একটি মদের দোকান থেকে মদ খেয়ে বাড়ি ফিরছিলেন। রাত সোয়া ১২টার দিকে স্টেশন এলাকায় আসার পর তিনি স্থানীয়দের সঙ্গে মাতলামি করতে থাকেন। বিষয়টি থানা পুলিশকে জানানো হলে টহল পুলিশের দায়িত্বে থাকা এসআই দেওয়ান শামীম সঙ্গীয় ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছান। এ সময় তিনি নয়নকে মদ খাওয়ার কথা জিজ্ঞাসা করলে তিনি স্বীকার করেন। পরে তাকে গ্রেফতার করে পরীক্ষার জন্য গোয়ালন্দ উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক পরীক্ষা করে নয়নকে মদ্যপ বলে সনদপত্র দেন।
নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র জানায়, গোয়ালন্দ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ও দৌলতদিয়া ইউনিয়ন পরিষদের সাবেক চেয়ারম্যান মরহুম নুরুল ইসলাম মণ্ডলের ওপর ইতোপূর্বে সন্ত্রাসীদের গুলিবর্ষণের ঘটনার পর দীর্ঘদিন নয়ন গা-ঢাকা দিয়ে থাকেন। পরে নুরু মণ্ডলের মৃত্যুর পর (অসুস্থতাজনিত কারণে) তিনি প্রকাশ্যে আসেন। এরপর রাজনীতিতে সক্রিয় হয়ে সম্প্রতি নবগঠিত গোয়ালন্দ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের পদ লাভ করেন।
এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি আল মাহমুদ মিশা ও সাধারণ সম্পাদক হিরু মৃধা বলেন, সংগঠন বিরোধী ও অনৈতিক কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকার দায়ে উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ৩নং সাংগঠনিক সম্পাদক নয়ন মণ্ডলকে সাময়িক বহিষ্কার করা হয়েছে। এভাবে দলীয় শৃঙ্খলা পরিপন্থী কাজ করলে কাউকেই ছাড় দেয়া হবে না।
এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ ঘাট থানার এসআই জাকির হোসেন বলেন, নয়নের বিরুদ্ধে গোয়ালন্দ ঘাট থানায় মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ আইনে মামলা দায়ের করা হয়েছে। বুধবার সকালে তাকে আদালতের মাধ্যমে রাজবাড়ী কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here