1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
রবিবার, ২৭ নভেম্বর ২০২২, ০৪:২০ অপরাহ্ন
Title :
অতিরিক্ত দামে তেল বিক্রি করছেন রাজবাড়ীর সকল ফিলিং ষ্টেশন গোয়ালন্দে ৪ কেজি গাজাসহ যুবক গ্রেফতার পাংশায় কবি সাহিত্যিকদের মিলন মেলায় গুনীজন সংবর্ধনা প্রধামমন্ত্রীর জনসভা থেকে চুরি হওয়া ফোনসেট গোয়ালন্দে উদ্ধার, গ্রেপ্তার ২ পাংশায় জেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ও সদস্যদের সংবর্ধনা পাংশায় জাল সনদে চাকুরীর অভিযোগ ‘বর্তমান সরকার কৃষি বান্ধব’ গোয়ালন্দে কৃষকলীগের সম্মেলনে নূরে আলম সিদ্দিকী হক ‘বিএনপি ভ্যান চালকদের নিকট থেকে চাল কেড়ে নিয়েছে’ -জিল্লুল হাকিম এমপি গোয়ালন্দে সহস্রাধিক সুবিধাবঞ্চিত শিশু নিয়ে দিনব্যাপী ব্যাতিক্রমী আয়োজন গোয়ালন্দে অগ্নিকান্ডে ক্ষতিগ্রস্ত পরিবারকে সহায়তা প্রদান

বালিয়াকান্দিতে একই পরিবারে ৪জন প্রতিবন্ধী ॥ ভাতা পায় না কেউ

Reporter Name
  • Update Time : বুধবার, ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭
  • ১০৮৩ Time View

সোহেল রানা ॥
রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার বহরপুর ইউনিয়নের বাহিরচর গ্রামে একই পরিবারে ৪জন প্রতিবন্ধী। কারোর ভাগ্যেও জোটেনি প্রতিবন্ধী ভাতা।

কেউ ভিক্ষা করে আবার কেউ এলাকার মানুষের সহযোগিতায় চা বানিয়ে কোন মতো দু,বেলা খেয়ে না খেয়ে দিনতিপাত করছে। এক বেলা খাওয়া জুটলেও জোটেনি মাথা গোজার ঠাঁই। বাধ্য হয়ে তারা বেছে নিয়েছে বহরপুর উন্নয়ন সংস্থার খোলা বারান্দা।

বুধবার সকালে সরেজমিন বাহিরচর গ্রামে গিয়ে কথা হয় প্রতিবন্ধী মোস্তফা শেখ (৫৩) সাথে। তিনি জানালেন, তার স্ত্রী সাজেদা বেগম (৫০), ছেলে সেলিম শেখ (২৪) ও তার বাবা ইসমাইল শেখ (৮৫) সবাই প্রতিবন্ধী। তার বাবা ভিক্ষা করে। ছেলে প্রতিবন্ধী অবস্থায় ব্যাটারী চালিত ভ্যান চালায়। নিজে কিছু করতে পারে না বিধায় স্থানীয় লোকজনের নিকট থেকে টাকা নিয়ে কোন মতো এস,এম,এ খালেকের জমির উপর চায়ের টং ঘর বসিয়ে চা বিক্রি করে। যাদের কাছ থেকে টাকা নেয়, তারাই চা খেয়ে পরিশোধ করে। ছেলে সড়ক দুঘর্টনায় আহত হলেও তারপরও জীবনের ঝুকি নিয়েই জীবন সংগ্রামে ব্যস্ত থাকতে হয়। পরিবারে এক চিলতে জায়গা না থাকায় রাতের বেলায় বহরপুর উন্নয়ন সংস্থার খোলা বারান্দায় কোন মতো পাঠকাঠি দিয়ে আড়াল করে রাত্রি যাপন করতে হচ্ছে। শীতে চরম কষ্টের মধ্যে জীবন-যাপন করতে হচ্ছে তাদের। এ নিদারুন কষ্টের মধ্যে দিনতিপাত করলেও তাদের কারো ভাগ্যে জোটেনি সরকারী ভাবে বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধি ভাতার কার্ড।
স্থানীয় বাসিন্ধা সালাম মোল্যা, আকমল শেখ জানান, একই পরিবারে ৪জন প্রতিবন্ধী নিয়ে নিদারুন কষ্টে তারা জীবন যাপন করছেন। আমরা তাকে আগাম ২-১শত করে টাকা দিয়ে চা-পান খেয়ে পরিশোধ করি। এতে তার যা আয় হয় তা দিয়েই কোন মতে সংসার চলে। সরকারী ভাবে তাদের প্রতিবন্ধি ভাতার ব্যবস্থা করলে পরিবারটি উপকৃত হতো।

বহরপুর ইউনিয়নের ১নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য মোঃ শুকুর আলী খান জানান, আমরা যে কয়টি কার্ড পাই, তা দিয়ে সবার মন রক্ষা করা সম্ভব নয়। তবুও এ পরিবারটি যাতে বয়স্ক ভাতা, প্রতিবন্ধী ভাতা পায় তার ব্যবস্থার চেষ্টা চালাচ্ছি।

উপজেলা সমাজসেবা অফিসার অজয় হালদার জানান, এ পর্যন্ত তারা আসেনি। তারা আসলে তাদেরকে প্রতিবন্ধীদের তালিকায় এনে ভাতার ব্যবস্থা করা হবে।

উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ মাসুম রেজা জানান, তাদেরকে অফিসে পাঠিয়ে দিন। প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution