পানি কমার সাথে সাথে পদ্মা পাড়ে ভাঙন আতঙ্ক

0
170

রুবেলুর রহমান ॥
পদ্মা বিধৌত জেলা রাজবাড়ী। এ জেলার ৮৫ কিলোমিটার অংশে রয়েছে প্রমত্তা পদ্মা। প্রতিবছর পদ্মার ভাঙনে বিলিন হয় বসতবাড়ী, ফসলি জমিসহ নানা স্থাপনা। মূলত বর্ষার শুরু ও শেষে দেখাদেয় ভাঙনের তীব্রতা।
গত কয়েকদিন দ্রুত গতিতে পদ্মার পানি রাজবাড়ী অংশে কমা অব্যাহত রয়েছে। গত ২৪ ঘন্টায় রাজবাড়ী গোয়ালন্দের দৌলতদিয়ায় পদ্মার পানি ১৬ সেন্টিমিটার কমে বিপদসীমার ২৮ সেন্টিমিটার ওপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। এছাড়া পাংশা সেনগ্রাম পয়েন্টে পানি কমলেও বিপদসীমার ওপরে রয়েছে। তবে পানি কমে বিপদসীমার নিচে নেমে রাজবাড়ী সদরের মহেন্দ্রপুর পয়েন্টের পানি। বর্তমানে দুই দফায় প্রায় এক মাসের বেশি সময় স্থায়ী হয়েছে রাজবাড়ী অংশের পদ্মায় বন্যার পানি। এখন পানি কমে বন্যা পরিস্থিতির উন্নতি হলেও পদ্মা পাড়ের বাসীন্দাদের মধ্যে দেখা দিয়েছে ভাঙন আতঙ্ক। সাম্প্রতিক সময়ে রাজবাড়ী সদরের গোদার বাজার অংশে চলামান স্থায়ী নদীর ডান তীর প্রতিরক্ষা বাঁধে ধস এবং দৌলতদিয়া লঞ্চ ও ফেরি ঘাট এলাকায় ভাঙন দেখা দিয়েছে। এদিকে ভাঙন রোধে কাজ করছে পানি উন্নয়ন বোর্ড ও বিআইডব্লিউটিএ।
পদ্মা পাড়ের বাসীন্দারা বলেন, বর্ষায় সন্তান, পরিবার ও গবাদি পশু নিয়ে থাকা-খাওয়া, চলাচলসহ অনেক কষ্ট করতে হয়। এখন যদি আবার নদী ভাঙে, তাহলে কোথায় যাবেন। সব সময়ই তাদের কষ্ট। এখন তারা ভাঙনের ভয়ে আছেন। স্থায়ীভাবে নদী শাসন ও ভাঙন কবলিত এলাকা চিহিৃত করে জরুরী ভিত্তিতে কাজের জন্য যথাযথ কর্তৃপক্ষ অনুরোধ জানান তারা।
রাজবাড়ী পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ বিভাগীয় প্রকৌশলী আরিফুর রহমান অঙ্কুর বলেন, পদ্মার পানি কমার সময় ভাঙনের শঙ্কা থাকে। এ জন্য তারা সর্তক আছে। এ জন্য চলমান কাজের ঠিকাদারদের প্রস্তুত থাকতে বলেছেন। যেখানে ভাঙন দেখা দেবে সেখানেই কাজ করা হবে। এছাড়া দৌলতদিয়া ঘাট এলাকায়ও কাজ চলছে। তিনি আরও বলেন, বতর্মানে পদ্মার পানি কমলেও এখনও বিপদসীমার ওপরে রয়েছে। যেভাবে পানি কমছে, তাতে দ্রুত বিপদসীমার নিচে নেমে আসবে। পানি বাড়ার আর কোন সম্ভাবনা নাই।

LEAVE A REPLY

Please enter your comment!
Please enter your name here