1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
শুক্রবার, ২১ জানুয়ারী ২০২২, ০৪:৫১ অপরাহ্ন

বিদ্যালয় চলাকালে গোয়ালন্দের মদের দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ ॥ কোচিং সেন্টারে তালা মারা হবে

Reporter Name
  • Update Time : সোমবার, ১৫ জানুয়ারি, ২০১৮
  • ৮৪৯ Time View

বিদ্যালয় চলাকালীন সময়ে রাজবাড়ী জেলার গোয়ালন্দ উপজেলার মদের দোকান বন্ধ রাখার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। রোববার সকাল ১০টায় জেলা প্রশাসকের সম্মেলন কক্ষে আইন-শৃঙ্খলা কমিটির সভায় এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলী। এতে বক্তব্য দেন সিভিল সার্জন চিকিৎসক রহিম বক্স, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক আবদুর রহমান, জেষ্ঠ্য সহকারী পুলিশ সুপার (সদর সার্কেল) আছাদুজ্জামান, কালুখালী উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান কাজী সাইফুল ইসলাম, বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান আবুল কালাম আজাদ, গোয়ালন্দ উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবু নাসার উদ্দিন প্রমূখ।

সভায় ডা. আবুল হোসেন কলেজের সহকারী অধ্যাপক শামীমা আক্তার বলেন, গোয়ালন্দ বাজারে মদের দোকান থেকে স্কুলগামী শিক্ষার্থীরা মদ কিনছে। শহরের বিভিন্ন স্থানে মাদক দ্রব্য বিক্রি করা হচ্ছে। বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নোট বই কিনতে বাধ্য করা হচ্ছে। কোচিং বাণিজ্য লাগামহীন ভাবে বেড়ে চলছে। উজানচর ইউপি চেয়ারম্যান আবুল হোসেন ফকীর বলেন, গোয়ালন্দ ঘাট বাজার থেকে মদের সরিয়ে দৌলৎদিয়ায় স্থাপন করা হোক। সিঁদেল চুরি থেকেই ডাকাত হয়। দেশী মদ গ্রহনের পরে ইয়াবা, হেরোইন প্রভৃতি প্রাণঘাতী মাদকে আসক্ত হয়।

মাদক নিয়ন্ত্রণ অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক রাজীব মিনা বলেন, কোনো কোনো মাদক বিক্রেতাকে পাঁচ থেকে সাতবারও গ্রেপ্তার করা হয়েছে। তাদের কাছ থেকে প্রথমে কম মাদক পাওয়া গেলেও গ্রেপ্তারের পর মুক্তি পেয়ে আরো বেশি পরিমানে মাদক বিক্রি করে। মাদকের বিরুদ্ধে বড় ধরনের সচেতনতা বা সামাজিক আন্দোলন ছাড়া মাদক নিয়ন্ত্রণ সম্ভব না।

জেলা প্রশাসক মো. শওকত আলী বলেন, গোয়ালন্দের মদের দোকান পাকিস্তান আমল থেকে চলে আসছে। তাদের সরকারের কাছ থেকে নিবন্ধন নেওয়া আছে। দৌলৎদিয়া ঘাটও স্থানান্তর করার প্রক্রিয়া চলছে। একারনে আপাতত মদের দোকানটি সরানো যাচ্ছে না। তবে স্কুল চলাকালীন সময়ে মদের দোকান বন্ধ রাখার ব্যবস্থা করা হবে। আমরা সর্বক্ষেত্রে মাদককে না বলবো। তিনি আরো বলেন, কোচিং সেন্টারগুলোতে প্রয়োজনে তালা লাগিয়ে দেওয়া হবে। কোচিং বাণিজ্য সমূলে তুলে দেওয়া হবে। তবে গাইড বই পড়ানো বন্ধের বিষয়ে শিক্ষকদের এগিয়ে আসতে হবে। অভিভাবকদের সচেতন হতে হবে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution