1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
শনিবার, ০১ অক্টোবর ২০২২, ০১:২৬ অপরাহ্ন

বালিয়াকান্দিতে এহসান সোসাইটি শত শত গ্রাহকের টাকা নিয়ে উধাও

Reporter Name
  • Update Time : শুক্রবার, ১৬ ফেব্রুয়ারি, ২০১৮
  • ১৬০৩ Time View

“নেশামুক্ত, অপচয়মুক্ত, আলস্য মুক্ত থাকি, যে টাকা হারিয়ে যেত, সে টাকা ধরে রাখি” সুদ মুক্ত ও শরিয়াহ মোতাবেক পরিচালিত আশ্বাসে এহসান সোসাইটি রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার নারুয়া বাজারে শাখা অফিস করে কার্যক্রম শুরু করে।

শত শত গ্রাহকের টাকা হাতিয়ে গাঢাকা দেয় কর্মকর্তারা। এহসান সোসাইটির নিজস্ব সম্পত্তি জমি বিক্রি করে গ্রাহকদের টাকা ফেরত দেওয়ার কথা থাকলেও জমি বিক্রির টাকাও হাওয়া হয়ে গেছে। প্রতারিত গ্রাহকরা এখন দ্বারে দ্বারে ঘুরলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না। গ্রাহকদের চাপে মাঠকর্মীদের এখন বাড়ীতে থাকা দুষ্কর হয়ে পড়েছে।

জানাগেছে, ২০০৩ সালে আল এহসান, নতুন জেল খানার সামনে, মাগুরা, গভঃ রেজিঃ নং- ২৪৯/০১, জে, প্রশা/সাঃ-১৩/৩(২০০৩)/১১০ মুলে কার্যক্রম শুরু করে। পরে এহসান সোসাইটি প্লট নং-গ/৩৭/১, বারিধারা ভিউ (৩য় তলা) প্রগতি স্বরনি আমেরিকান দুতাবাসের বিপরীতে জাপানী স্কুল সংলগ্ন) গুলশান, ঢাকা-১২১২ প্রধান কার্যালয়। গভঃ রেজিঃ নং- অপঃ-ীীর ড়ভ ১৮৬০, ং-৩২১১(১৭৬) ২০০৩। ফরিদপুর অঞ্চলের নারুয়া কার্যালয়ের আওতায় কার্যক্রম শুরু করে। শত শত গ্রাহকদের নিকট থেকে আমানত সংগ্রহ করে ২০১৫ সালে চম্পট দেয়। এর কার্যক্রম বন্ধ হয়ে যায়। উপজেলাতে কিছু সম্পত্তি থাকার কারণে এলাকার গ্রাহকদের চাপের মুখে জমি বিক্রি করে আমানত ফেরত দেওয়ার কথা থাকলেও সে টাকার ও কোন হদিস মিলছে না। এখন গ্রাহকরা স্থানীয় মাঠ কর্মীকে টাকার জন্য চাপ সৃষ্টি করলে উল্টো গ্রাহকদের বিরুদ্ধে নানা ধরনের মিথ্যা মামলা দায়ের করার হুমকি দিচ্ছে। নারুয়া ইউনিয়নের চরঘিকমলা গ্রামের সিদ্দিকুর রহমানের ছেলে রাজু আহম্মেদ ১১ হাজার টাকা, সুজিত মন্ডলের স্ত্রী অর্পনা রানী মন্ডল ৫হাজার ৬শত টাকা, ইউসুফ মন্ডলের ছেলে আবু জাফরের ৮ হাজার ১শত টাকা, সিরাজুল ইসলামের স্ত্রী সালমা বেগম ৬ হাজার টাকা, ফেরদৌস শেখের স্ত্রী রিমি বেগমের ২৫শত টাকা, হাশেম আলীর স্ত্রী জহুরা বেগম ( আখি) ১২ হাজার ৬শত টাকা, নিয়ামত মন্ডলের ছেলে মিরাজুল ইসলাম মিরাজের ৪হাজার ৫শত টাকা, রমজান আলীর স্ত্রী মরিয়ম খাতুনের ৩হাজার ৪শত ৫০ টাকা, ইবাদত আলীর ছেলে কিয়াদ্দিন মন্ডলের ৬ হাজার টাকা, আব্দুস সালামের স্ত্রী ছাবিনা ইয়াসমিনের ৫হাজার ৮শত টাকা, সেলিম মন্ডলের স্ত্রী সাফিয়া বেগমের ২হাজার ৪শত টাকা, জিয়াউর রহমানের স্ত্রী মরিয়ম বেগমের ৯হাজার ২শত টাকাসহ এরকম শত শত গ্রাহকের টাকা নিয়ে উধাও হয়েছে।

গ্রাহক মরিয়ম বেগম জানান, মাঠকর্মী আছিরুল ইসলাম ওরফে বকুল মাষ্টার টাকা ফেরতের আশ্বাস দিয়ে দিনের পর দিন ঘোরাচ্ছে। বুধবার তার স্বামী টাকার জন্য ওই মাঠকর্মীর বাড়ীতে গেলে তাকে শার্টের কলার ধরে হুমকি দেয়, টাকা পাবি না, বেশি বাড়াবাড়ি করলে উল্টো মিথ্যা মামলায় ফাঁসিয়ে দেব। এরকম তার ভয়ে অনেক গ্রাহকই টাকা চাইতে পারে না।
অনেক গ্রাহক অভিযোগ করে বলেন, মাঠকর্মী গ্রাহকের কাছ থেকে টাকা নিলেও তাদের পাশ বইয়ে সে টাকা উত্তোলন করেনি। তারা দ্রুত টাকা ফেরতের দাবী জানান।

নাম না প্রকাশের শর্তে একজন বলেন, এহসান সোসাইটির জমি বিক্রি করে গ্রাহকদের টাকা ফেরত প্রদানের কথা থাকলেও নারুয়া বাজারের কয়েকজন ব্যবসায়ীর নিকট সে টাকা গচ্ছিত রয়েছে। তবে গ্রাহকদের কেন টাকা ফেরত প্রদান করা হচ্ছে না সে বিষয়ে পদক্ষেপ গ্রহনের দাবী জানান।

এদিকে এহসান সোসাইটির প্রধান কার্যালয়ের যে সব নম্বর ব্যবহার করা হয়েছে তা সবই বন্ধ পাওয়া যাচ্ছে।
এবিষয়ে এলাকার শত শত গ্রাহক দিনের পর দিন ঘুরেও টাকা ফেরত না পাওয়ায় ফুসে উঠছে। যে কোন সময় অপ্রীতিকর ঘটনার আশঙ্কা দেখা দিয়েছে।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution