1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
মঙ্গলবার, ১৬ অগাস্ট ২০২২, ০৯:৩০ পূর্বাহ্ন

রাজবাড়ীতে মালবাহি ট্রেন লাইনচ্যুত, নয় ঘন্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ২৭ নভেম্বর, ২০১৮
  • ৮৯০ Time View

মেহেদী হাসান ॥
রাজবাড়ীতে মালবাহি একটি ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার কারনে নয় ঘন্টা বন্ধ থাকার পর ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়েছে।
মঙ্গলবার ভোর রাতে ফরিদপুর থেকে ছেরে আসা দর্শনাগামী একটি ট্রেন ভোর সোয়া তিনটার দিকে রাজবাড়ী রেল স্টেশন এলাকায় এসে লাইনচ্যুত হয়। এতে বন্ধ হয়ে যায় রাজবাড়ী থেকে সকল রুটে ট্রেন চলাচল।
রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার মোঃ কামরুজ্জামান জানান, এই ট্রেনটি লাইনচ্যুত হওয়ার কারনে মঙ্গলবার সকালে রাজবাড়ী থেকে দৌলতদিয়াগামী লোকাল ট্রেন ও ফরিদুপুরগামী ট্রেনটি বন্ধ থাকে। এছাড়াও রাজবাড়ী থেকে ভাটিয়াপারার উদ্দেশ্যে ট্রেনটি ছেড়ে যায় আধা ঘন্টা পরে। এরপর সাড়ে বারোটার দিকে এই রুটের ট্রেন চলাচল স্বাভাবিক হয়।
এদিকে রাজবাড়ী শহরের সবচেয়ে জনবহুল ও ব্যস্ততম রেলগেট এলাকার রেলওয়ের ওভারব্রীজের সিঁড়ি দীর্ঘদিন ধরে ভাঙ্গা অবস্থায় রয়েছে। এতে করে নামতে গিয়ে প্রায়ই দুর্ঘটনার শিকার হয় পথচারীরা। মেরামতের উদ্যোগ নেই কর্তৃপক্ষের।
রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন মাস্টার কার্যালয় সুত্রে জানাযায়, প্রতিদিন যাত্রীবাহী ট্রেন ছয় জোড়া এবং দুই থেকে তিনজোড়া মালবাহী ট্রেন রাজবাড়ীর একনম্বর রেলগেট এলাকা দিয়ে যাতায়াত করে। এছাড়াও ট্রেনের ইঞ্জিন পরিবর্তন ও সার্টিংয়ের সময় এই ক্রসিং ব্যবহার করা হয়। এসময় প্রতিবন্ধক নামিয়ে দেওয়া হয়। যে কারনে পথচারীরা ওভারব্রীজ বা উড়াল সেতু ব্যবহার করে। উড়াল সেতুটি রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন থেকে প্রায় একশ মিটার পূর্ব দিকে অবস্থিত।
সরেজমিনে মঙ্গলবার সকালে দেখা যায়, মালবাহি ট্রেন লাইনচ্যুত হওয়ার কারনে বন্ধ রাখা হয়েছে রাজবাড়ীর প্রধান বাজারে প্রবেশের দুটি গেট। কোন প্রকার যানবাহন চলাচল করতে না পারলেও হাজার হাজার মানুষ রেলওয়ের ওভারব্রীজ দিয়ে যাতায়াত করছে। ওভারব্রীজের দক্ষিণ দিকের সিঁড়ির কয়েকটি ধাপ ভাঙা অবস্থায় রয়েছে। সিঁড়ির পাটাতনগুলো নড়বড়ে। ব্রীজের উত্তরদিকে ফলমূলের দোকান দিয়েছেন এক ব্যবসায়ী। দোকানের উপরে পলিথিন দিয়ে ছাউনি দেওয়া হয়েছে। ছাউনিতে পথচারীদের মাথা ছুঁয়ে যাচ্ছে।
দোকান মালিক গোলাম মোস্তফা (৫০) বলেন, আমি ছোটকাল থেকেই এখানে দোকান করি। কখনো সিড়ির পাশে রেললাইনের ওপর করি। কখনোবা এই স্থানটিতে ব্যবসা করি। তবে চলাচলের কোনো সমস্যা করি না। কেউ সমস্যার কথা বললে মালামাল সরিয়ে রাখি।
বেরাডাঙ্গা এলাকার বাসিন্দা আব্দুল আজিজ বলেন, কিছুদিন আগে বিকেলে মালবাহী গাড়ি যাচ্ছিলো। এসময় ওভারব্রীজ দিয়ে পারাপার হচ্ছিলাম। কিন্তু সিঁড়িটি ভাঙার কথা জানতাম না। নামতে যাওয়ার সময় আমার বন্ধু পড়ে যান। এতে তাঁর পা মচকে যায়। পরে খোঁজ নিয়ে জেনেছি যে, এখানে মাঝেমধ্যেই এই ধরনের দুর্ঘটনা ঘটে। শহরের সবচেয়ে ব্যস্ততম এলাকার ওভারব্রীজটির বেহাল দশা দেখলে খুব খারাপ লাগে। এবিষয়ে রেল কর্তৃপক্ষ ও জনপ্রতিনিধিদের উদ্যোগ নেওয়া উচিত।
রাজবাড়ী সরকারি কলেজের শিক্ষার্থী শরিফুল ইসলাম বলেন, একথা সত্য জনসচেতনতা না থাকায় অনেকেই ওভারব্রীজ ব্যবহার করে না। তবে এখন অনেকেই এ বিষয়ে সচেতন হয়েছে। কিন্তু ওভারব্রীজের কয়েকটি সিঁড়ি অনেকদিন ধরে ভাঙা অবস্থায় রয়েছে। এতে করে সিঁড়ে বেড়ে নামার সময় অনেকেই অসাবধানতাবশত পড়ে যান। আর বয়সী মানুষদের এই ভাঙা সিঁড়ি অতিক্রম করা খুব কষ্টকর।
শহরের বড়পুল এলাকার বাসিন্দা অভিজিৎ সোম বলেন, অনেকদিন ধরে দেখছি সিঁড়িগুলো ভাঙা অবস্থায় রয়েছে। যখন গেটের বেরিয়ার নামিয়ে দেওয়া হয় তখন অনেক মানুষ ওভারব্রীজ ব্যবহার করেন। কিন্তু সিঁড়ি ভাঙা থাকায় অনেকেই ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা পারাপার হয়। কেউবা দাঁড়িয়ে থাকে। তবে মালগাড়ি আসলে দুর্ভোগের সীমা থাকে না। কারন মালগাড়িতে অনেকগুলো বগি থাকে। এতে করে সময়ও অনেক বেশি লাগে।
নাম প্রকাশ না করার শর্তে কয়েকজন বলেন, সিঁড়ি ভাঙা থাকার ফলে অনেকের খুব সুবিধে হয়। কারন সিঁড়ি ভাঙা থাকায় রাতের বেলায় কেউ ওভারব্রীজ ব্যবহার করেন না। এতে করে ওভারব্রীজটি মাদকসেবীসহ অসামাজিক কাজে জড়িতদের অভয়ারন্যতে পরিণত হয়। রাতে ওভারব্রীজ দিয়ে যাতায়াত করলে বিব্রত হতে হয়।
বাংলাদেশ রেলওয়ের উপসহকারি প্রকৌশলী (সেতু) মোঃ হাসান আলী বলেন, ওই ওভারব্রীজটি দীর্ঘদিন ধরে পরিত্যক্ত অবস্থায় ছিলো। অনেকদিন ধরে সেটি সংস্কার করা হয় না। বিষয়টি উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষকে অবহিত করা হয়েছে। ওভারব্রীজটি মেরামত করার জন্য উদ্যোগ নেওয়া হবে।

 




Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution