1. jitsolution24@gmail.com : Rajbaribd desk : Rajbaribd desk
মঙ্গলবার, ০৪ অক্টোবর ২০২২, ০৩:২৭ পূর্বাহ্ন
Title :
গোয়ালন্দের পূজামন্ডপ পরিদর্শন ও উপহার সামগ্রী দিলেন পুলিশ সুপার পাংশায় ডিসি-এসপি’র মন্দির পরিদর্শন সহজ পাঠ বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের গোয়ালন্দে ওসি’র ফুলেল শুভেচ্ছা গোয়ালন্দে রেলওয়ে পুলিশ সুপারের দূর্গা মন্দির পরিদর্শন গোয়ালন্দে পিছিয়ে পড়া শিশুদের অংশগ্রহনে প্রীতি ফুটবল খেলার আয়োজন রাজকীয় বিদায় দিলেন পাংশা থানার কনস্টেবলকে দৌলতদিয়া ঘাট আধুনীকায়ন প্রকল্প ॥ হয়নি জমি অধিগ্রহন, তবুও নভেম্বরে কাজ শুরুর আশা কালুখালীতে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন বাতিলের দাবিতে মানববন্ধন গোয়ালন্দে ঘরের বেড়ায় ঢেড়স চাষ, মিটাচ্ছে পারিবারিক চাহিদা রাজবাড়ীতে পাট কাঠি বিক্রি করেও লাভবান চাষিরা

বালিয়াকান্দিতে শতবর্ষী শ্মশানে সৎকারে বাঁধার অভিযোগ

Reporter Name
  • Update Time : মঙ্গলবার, ১২ ফেব্রুয়ারি, ২০১৯
  • ৫১০ Time View

রাজবাড়ীর বালিয়াকান্দি উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের শতবর্ষী নারায়নপুর মহাশ্মশানে মঙ্গলবার বিকালে লাশ সৎকারে বাঁধা প্রদানের অভিযোগ উঠেছে। বাঁধার মুখে বহরপুর মহাশ্মশানে সৎকার করতে বাধ্য হয়েছে।
জানাগেছে, উপজেলার ইসলামপুর ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামের ষষ্ঠী শর্মার স্ত্রী অমিয় শর্মা (৭০) মঙ্গলবার সকালে নিজবাড়ীতে বার্ধক্যজনিত কারণে মারা যান। তার লাশ নারায়নপুর মহাশ্মশানে সৎকার করার উদ্যোগ গ্রহন করে পরিবার।
নিহতের ছেলে তুষার শর্মা জানান, তার মায়ের মৃত্যুর পর নারায়নপুর শতবর্ষী সার্বজনীন মহাশ্মশানে সৎকারের জন্য এলাকার লোকজন নিয়ে যান। সেখানে যাওয়ার পর নারায়নপুর গ্রামের আব্দুল মালেক শেখ ও তার লোকজন লাশ সৎকারে বাঁধা সৃষ্টি করে। বাঁধার মুখে পরবর্তীতে বহরপুর মহাশ্মশানে লাশটি সৎকার করতে বাধ্য হন।
বাঁধা প্রদানকারী আব্দুল মালেক শেখ এ প্রসঙ্গে বলেন, আমি ঘটনাস্থলেই ছিলাম না। আমি বা আমার পরিবারের কোন লোক বাধা দেয়নি।
বালিয়াকান্দি থানার এসআই বিল্লাল হোসেন জানান, নারায়ানপুর মহাশ্মশানে হিন্দু সম্প্রদায়ের এক লাশ পোড়ানোয় বাঁধা দেওয়ার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যাই। যাতে শান্তি শৃঙ্খলা বজায় থাকে সে ব্যবস্থা করি।
এ ঘটনাটি এলাকায় ছড়িয়ে পড়লে হিন্দু ও মুসলিম সম্প্রদায়ের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের সৃষ্টি হয়েছে। এ ঘটনায় বালিয়াকান্দি উপজেলা পুজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অধ্যক্ষ বিনয় কুমার চক্রবর্তী, সাধারন সম্পাদক অধ্যাপক নিতিশ কুমার মন্ডল, উপজেলা হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রিষ্ঠান ঐক্য পরিষদের সভাপতি রামগোপাল চট্রোপাধ্যায়, সাধারন সম্পাদক সনজিৎ কুমার দাসসহ বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ তীব্র নিন্দা ও দোষী ব্যাক্তির আইনের আওতায় এনে শাস্তি দাবী করেছেন।
উল্লেখ্য, নারায়নপুর গ্রামের বাসিন্দা পল্লী চিকিৎসক সুনিল কুমার ঘোষ গংদের আবেদনের প্রেক্ষিতে রাজবাড়ী জেলার প্রশাসকের এসএ শাখা সরকারী জায়গায় অবস্থিত হিন্দু সম্প্রদায়ের মহাশ্মানের জায়গা অবৈধ দখলদারে হাত থেকে উদ্ধার করতে গত ৫ জুন তারিখে একটি চিঠি বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসর বরাবরে প্রেরন করেন। যার স্মারক নং ০৫-৩০-৮২০০-০১০-৫১-১৭ ৮২৮(ক)। বালিয়াকান্দি উপজেলা নির্বাহী অফিসারের পরামর্শে ৩১ জুলাই তারিখে বালিয়াকান্দি সরকারী কমিশনার ভুমি এবং নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট উচ্ছেদ অভিযান পরিচালনা করেন। উচ্ছেদ অভিযানের পর গত ২ আগষ্ট নারায়নপুর গ্রামের মৃত কেসমত আলীর ছেলে আব্দুল মালেক বাদী হয়ে রাজবাড়ী ১নং আমলী আদালতে ইসলামপুর ইউনিয়নের চেয়ারম্যান মোঃ আবুল হোসেন খানসহ ১০ জনকে আসামী করে একটি মামলা দায়ের করেন। মামলাটি তদন্তপূর্বক প্রতিবেদন দাখিলের জন্য ৭ অক্টোবর দিন ধার্য করে। এর প্রেক্ষিতে বালিয়াকান্দি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান মো. আবুল কালাম আজাদ গত ১৪ সেপ্টেম্বর সকালে নোটিশের মাধ্যমে উভয় পক্ষকে ডেকে ঘটনার বিস্তারিত শোনেন এবং লিখিত বক্তব্য গ্রহন করেন। গত ২ অক্টোবর মিসপি ২১২/১৮ এর উপজেলা পরিষদের স্মারক নং উপ/চেয়ার/বালি/রাজ ২০১৮-৪৯, স্মারক নং ৪১২ তারিখ ২/৮/১৮ইং। উপজেলা পরিষদের দেওয়া তদন্ত প্রতিবেদন প্রদান করে। মামলাটি বর্তমানে আদালতে চলমান রয়েছে। জায়গাটি মুলত বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের। হিন্দু সম্প্রদায়ের লোকজন প্রায় শতবর্ষ ধরে সেখানে লাশ সৎকার করে আসছিল।

Please Share This Post in Your Social Media

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

More News Of This Category
Design by: JIT Solution